• সোমবার , ২২ জুলাই ২০২৪

প্রশ্নপত্র ফাঁস, লোভনীয় ব্যবসা!


প্রকাশিত: ৬:৫২ পিএম, ৭ জুন ১৪ , শনিবার

নিউজটি পড়া হয়েছে ১৫৯ বার

 

 pro-1প্রশ্নপত্র ফাঁস এখন একটি লোভনীয় ব্যবসা হয়ে দাড়িয়েছে! অনেকেই জড়িয়ে পড়ছেন এই ব্যবসায়।প্রায় সময় পাবলিক পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস হচ্ছে।ফাঁস হওয়া প্রশ্ন বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে।প্রথম যে পাচ্ছে সে আবার ফটোকপি করে বিক্রি করছে আরো বেশী দামে।এরপর আরোও যত হাতবদল হবে দর ততই বাড়বে,,।পাবলিক পরীক্ষাগুলোর প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়াটা এ দেশে নতুন নয়—অনৈতিক কাজে আমাদের মেধা যেভাবে খরচ করি, তাতে এই চর্চা নতুন হওয়ার কথাও নয়। কিন্তু ভাবনার কথা হলো ফাঁসের ঘটনা বাড়ছে। অনেক লোকের কাছে এটি লোভনীয় ব্যবসা হয়ে দাঁড়িয়েছে। আবার ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্র সামাজিক যোগাযোগের নানা মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়ে ব্যবসানিরপেক্ষ আনন্দের ভাগীদারও হচ্ছেন অনেকে। কিন্তু ওই ফাঁস হওয়ার ব্যাপারটা যে আমাদের শিক্ষা-দর্শনের গলাতেই ফাঁস পরিয়ে এর দফারফা করছে, তা আমরা খেয়াল করছি না। কিন্তু আজ যা সামান্য একটু দমকা বাতাস, কাল যে তা ঝড়ের তাণ্ডবে রূপ নেবে না, তার কি কোনো নিশ্চয়তা আছে।

পত্রপত্রিকায় নানান সময়ে আমরা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো বিভাগের অথবা মেডিকেল কলেজের ভর্তি পরীক্ষার অথবা বিসিএস ২৫ বা ২৭ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার কথা পড়েছি। অনেক ক্ষেত্রে তদন্ত কমিটি হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশে তদন্ত কমিটি হওয়া আর অপরাধের বিষয়টা একসময় চাপা পড়ে যাওয়া একই জিনিস বলে ফাঁসকারীদের বিরুদ্ধে তেমন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। ফলে অপরাধীরা নিশ্চিন্ত মনে এবং বেপরোয়াভাবে কাজটা করার ধৃষ্টতা দেখায়। সর্বশেষ গত এইচএসসি পরীক্ষায় কয়েকটি প্রশ্নপত্র আগেভাগেই পরীক্ষার্থীদের হাতে চলে আসায় দেশব্যাপী ক্রোধ ও হতাশা তৈরি হয়েছে।

পত্রপত্রিকায়, টিভি চ্যানেল এবং ফেসবুকে প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার পক্ষে প্রমাণ তুলে ধরা হয়েছে। এরপর আমাদের জন্য তিনটি পথই শুধু খোলা থাকল: এক. আমাদের সেই চিরাচরিত অস্বীকার করার এবং দায় এড়িয়ে যাওয়ার অভ্যাসের আরেক দফা চর্চা করে বিষয়টিকে আমরা গুরুত্বহীন করে দিতে পারি, দুই. একটি তদন্ত কমিটি করে কিছুদিন হইচই করে, নানাবিধ আওয়াজ তুলে, একসময় আমরা চুপ করে যেতে পারি এবং তিন. কোমর বেঁধে সর্বশক্তি নিয়ে এই সামাজিক ব্যাধিটি চিরতরে নির্মূল করার কাজে নামতে পারি।
প্রথম পথটি গ্রহণ করলে আমরা প্রমাণ করব জাতি হিসেবে আমরা সুনীতি, সুস্থতা এবং সততাকে বিদায় জানিয়ে দিয়েছি। দ্বিতীয় পথটি গ্রহণ করলে আমরা আত্মপ্রবঞ্চক জাতি হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠা করব। আর তৃতীয় পথটি ধরে এগোলে আমরা মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে বলতে পারব, আমরা দুর্নীতির সঙ্গে আপস করি না। আমরা আমাদের সন্তানদের জীবন ও ভবিষ্যৎ নিয়ে কাউকে ব্যবসা করতে দেব না। এমনিতেই পরিবেশ দূষিত হচ্ছে, নদী হারিয়ে যাচ্ছে, খেলার মাঠ হাওয়া হয়ে যাচ্ছে, খাদ্যে বিষ ঢুকছে—আমরা শুধু অসহায়ের মতো দেখে যাচ্ছি। কিন্তু এখন আমাদের বলতে হবে, অনেক হয়েছে, আর না।
pro-3অনেকে হয়তো বলবেন, কয়েকটা প্রশ্নপত্র মাত্র ফাঁস হলো (কেউ কেউ বলবেন, ফাঁস হয়নি, হলেও যৎসামান্য), এ নিয়ে এমন যুদ্ধে নামার কী হলো? আমার উত্তরটা হলো, একটা বরফঢাকা পাহাড়ের ওপর থেকে যদি বরফের একটা পিণ্ড গড়িয়ে পড়ে, নিচের উপত্যকায় নামতে নামতে সেটি এক বিরাট দৈত্যের আকার নিতে পারে। শিক্ষা নিয়ে বাণিজ্য যেভাবে বাড়ছে—শিক্ষামন্ত্রী নিজেই বলেছেন, দেশের কোচিং-বাণিজ্যের পরিমাণ টাকার অঙ্কে প্রায় ৩২ হাজার কোটি টাকা—তাতে এই প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিষয়টাকে ওই বরফের গোলার সঙ্গে তুলনা করতে পারি। পিণ্ডটা আলগা হয়ে একটু নড়ে উঠছে, এটিকে এখনই ধরে গুঁড়ো করে না ফেললে এটি যে নিচের দিকে গড়িয়ে যাবে, তা তো নিশ্চিত। এবং অনেক নিচে নামতে নামতে এর আকার ও শক্তি এমন বাড়বে যে এটি প্রাণঘাতী হয়ে দাঁড়াবে।
প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিষয়টার যদি আমরা এখনই সুরাহা করতে না পারি, তাহলে কী হতে পারে, সেটি কিছু ভুক্তভোগীর মুখেই শুনুন। কয়েকটি টিভি চ্যানেলে দেখলাম, কয়েকজন এইচএসসি পরীক্ষার্থী বলছে, তারা ভয়ানক হতাশ। এক পরীক্ষার্থী বলল, অনেক খেটেখুটে যে পরীক্ষা দিয়েছে, নিয়মমতো পড়াশোনা করেছে, এখন সে যদি ‘এ’ পায় এবং একজন পরীক্ষার্থী ফাঁস হওয়া প্রশ্নে পরীক্ষা দিয়ে ‘এ প্লাস’ পায়, তাহলে সে আর পড়াশোনায় উৎসাহ পাবে না। আরেক পরীক্ষার্থী বলল, ছোটবেলা থেকে সে যে শুনে এসেছে, সৎ পথে থেকো, সৎ কাজে সিদ্ধি লাভ হয়, এ বিষয়টাই তো ভুল প্রমাণিত হবে। আমার বিভাগের প্রথম বর্ষের কিছু শিক্ষার্থী আমাকে অনুরোধ করেছে, প্রশ্ন ফাঁস নিয়ে কাগজে লিখতে। তাদের কেন এ নিয়ে চিন্তা করতে হবে, তারা তো এইচএসসি পাস করে এসেছে? তারা বলল, স্যার, নকল করে পাস করা ডাক্তারের কাছে আপনি যাবেন? নকল করে প্রকৌশলী হওয়া কোনো লোকের কাছে দালান বা পুল বানানোর দায়িত্ব দেবেন?
একসময় দেশে খুব নকল হতো। গত বিএনপি সরকারের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী নকলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছিলেন। তিনি গাড়িতে-হেলিকপ্টারে চড়ে পরীক্ষাকেন্দ্রে যেতেন। নকলবাজ, নকল সরবরাহকারীদের ধরতেন৷ মানুষ তাঁকে সাধুবাদ জানিয়েছে। তাঁর এই অবস্থানকে অবশ্য রাজনীতির কাচের ভেতর দিয়ে দেখার চেষ্টা হয়েছে, যেমন আমাদের দেশে সব সময়ই হয়। কিন্তু নকল রোধের ফলটা গেছে তাঁর দলের নয়, দেশের পক্ষেই। নকল সমস্যার সমাধান হয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এলে আমরা একজন শিক্ষাবান্ধব ও নিষ্ঠাবান শিক্ষামন্ত্রী পেয়েছি। তাঁর উদ্যোগে নকলপ্রবণতা ফিরে আসার সম্ভাবনা বন্ধ হয়েছে। মুখস্থনির্ভর শিক্ষাপদ্ধতি থেকে সৃজনশীল শিক্ষাপদ্ধতির দিকে যাওয়ায় নকলের সুযোগ কমেছে। পত্রপত্রিকায় দেখেছি, আবার নকলের চেষ্টা হচ্ছে। একটা খারাপ চর্চা চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে, এই দুঃখ সহ্য করতে পারে না তেমন মানুষের অভাব এ দেশে নেই, বিশেষ করে ওই খারাপ চর্চায় যখন ধনসম্পদ হাতে আসে। তার পরও নকল ব্যবসা রমরমা হতে পারেনি। একটা সামাজিক মতৈক্য তৈরি হয়েছে এ ব্যাপারে, সেটি এখনো ভেঙে পড়েনি। একইভাবে প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করলে সেটিও বন্ধ হবে। নকলের মতো ভয়ানক সংক্রামক ব্যাধিকে নিয়ন্ত্রণ করা গেছে, এই দ্বিতীয় ব্যাধিটাও নিশ্চয় বাগে আনা যাবে।
শিক্ষামন্ত্রীর ওপর আমার আস্থা আছে। কিন্তু তিনি একা সবকিছু করতে পারবেন, তা ভাবার কারণ নেই। তিনি নিজেই বলেছেন, শিক্ষা-কারবারিরা এখন এক বিরাট শক্তি, তারা প্রতিরোধ সৃষ্টি করবে। কিন্তু তিনি যদি কাজটা শুরু করেন, দেশ তাঁর সঙ্গে থাকবে। কারণ এই ক্ষেত্রে ব্যর্থ হওয়ার মানে হচ্ছে প্রজন্মের পর প্রজন্মকে বঞ্চিত করা, নৈতিকভাবে দুর্বল করে দেওয়া এবং শিক্ষার ভিত নড়বড়ে করে দেওয়া। পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা আপাতত তুচ্ছ মনে হতে পারে—ওই পচা শামুকের মতো কিন্তু একবার পা কেটে গেলে বোঝা যাবে এ ধরনের কোনো কিছুকে অবহেলা করতে নেই।