• সোমবার , ১৫ জুলাই ২০২৪

টুকরা টুকরা করে লাশ গুম-মাফিয়া ত্রাসে এমপি খুন


প্রকাশিত: ১১:৪০ পিএম, ২২ মে ২৪ , বুধবার

নিউজটি পড়া হয়েছে ৪২ বার

বিশেষ প্রতিনিধি/কলকাতা প্রতিনিধি : ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার ভারতের কলকাতায় হত্যার শিকার হয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন সরকারের একাধিক মন্ত্রী। স্থানীয় একাধিক সূত্র দাবি করেছে, এমপি খুনের নেপথ্যে মাফিয়া কানেকশন রয়েছে। এই মাফিয়ারা বাংলাদেশ ভারতের মধ্যে সোনা পাচার হুন্ডি বাণিজ্যে’র নিয়ন্ত্রক ছিলো। এদের বিরোধী ছিলেন এমপি আনোয়ারুল আজিম আনার। বিষয়গুলো দীর্ঘদিন ধরে প্রতিপক্ষের চক্ষুসূল ছিলেন এমপি আনার।

টানা তিনবারের নির্বাচিত এই সংসদ সদস্যের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ‘এমপি আজিমকে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়েছে।’ এই ঘটনা ‘বাংলাদেশ ও ভারতের দ্বিপক্ষীয় কোনও ইস্যু নয়’ বলে মন্তব্য করেছেন তিনি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

তবে এখনও খোঁজ পাওয়া যায়নি আনোয়ারুল আজিমের মরদেহের। হত্যা করা হয়ে থাকলে এর পেছনে কারণ কী তা এখনও অজানা। ফলে নানা প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে বিষয়টি ঘিরে।
গত ১২ মে চিকিৎসার কথা বলে ভারতে যান আনোয়ারুল আজিম আনার। স্থানীয় সূত্র জানান, ওই দিন দুপুরের দিকে ঝিনাইদহ থেকে সড়কপথে নিজের ব্যক্তিগত গাড়িতে করে দর্শনা চেকপোস্ট পর্যন্ত যান আজিম। পরে দর্শনা-গেদে ইমিগ্রেশন পার হয়ে ভারতে প্রবেশ করেন তিনি।

কলকাতায় গিয়ে এমপি আনোয়ারুল আজিম তার কথিত বন্ধু স্বর্ণ ব্যবসায়ী গোপাল বিশ্বাসের বাড়িতে উঠেছিলেন। কলকাতার অদূরে ব্যারাকপুর কমিশনারেট এলাকার বরাহনগর থানার মণ্ডলপাড়া লেনে গোপাল বিশ্বাসের বাড়ি। গণমাধ্যমে জানা গেছে, এই ব্যবসায়ীর সঙ্গে তার দুই দশকের বেশি সময় ধরে সখ্য ছিল।

গোপাল বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমকে জানান, তার বাড়িতে ওঠার পরদিন ১৩ মে দুপুরে ‘বিশেষ প্রয়োজনের’ কথা বলে আজিম বেরিয়ে যান। দুপুরের দিকে বিধান পার্ক এলাকা থেকে ভাড়া করা গাড়িতে উঠে চলে যান আনোয়ারুল আজিম। সন্ধ্যায় ফিরে আসার কথা থাকলেও আর ফেরেননি তিনি।

পরে ওই দিনই আজিমের হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর থেকে গোপালের নম্বরে মেসেজ আসে, ‘বিশেষ কাজে দিল্লি চলে যাচ্ছি এবং পৌঁছে ফোন করবো, তোমাদের ফোন করার দরকার নেই।’
১৪ মে থেকে পরিবার ও দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে আজিমের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ছিল। তার ব্যবহৃত হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরটিও বন্ধ ছিল। পরে পরিবারের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যোগাযোগ করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে থেকে দিল্লিতে বাংলাদেশ দূতাবাস ও কলকাতায় উপদূতাবাসে যোগাযোগ করে খোঁজ নিতে বলা হয়।
এদিকে ১৮ মে কলকাতার বরাহনগর থানায় লিখিত ‘মিসিং ডায়েরি’ করেন গোপাল বিশ্বাস।
বুধবার (২২ মে) সকালে গোপাল বিশ্বাস স্থানীয় গণমাধ্যমকে জানান, এমপি আজিমকে হত্যা করা হয়েছে বলে কলকাতা পুলিশ তাকে জানিয়েছে।

লাশ গুম করেছে-

কলকাতার নিউ টাউনের বিলাসবহুল আবাসন ‘সঞ্জিভা গার্ডেনে’ এমপি আজিম হত্যার শিকার হন বলে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে তথ্য এসেছে। তবে সেখানে তার লাশ নেই বলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, কলকাতায় নিউ টাউন এলাকায় যে ফ্ল্যাটে ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারকে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে, সেখানে তার লাশ পাওয়া যায়নি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এক সেমিনারে অংশ নেওয়ার পর সাংবাদিকদের হাছান মাহমুদ বলেন, আনোয়ার আজিমের হত্যাকাণ্ড দুঃখজনক, মর্মান্তিক, অনভিপ্রেত। যে ফ্ল্যাটে তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হয়েছিল, কলকাতা পুলিশ সেখানে লাশ পায়নি। কীভাবে হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে, সে বিষয়ে তদন্ত চলছে। এ নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিস্তারিত বলবে। আমরা মিশনের মাধ্যমে খোঁজ রাখছি। মিশন কলকাতা পুলিশের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছে। যেহেতু তদন্তাধীন বিষয়, তাই এ বিষয়ে বেশিকিছু বলা যাচ্ছে না।

এদিকে লাশ কোথায় আছে সে ব্যাপারে কলকাতা পুলিশ এখনও কোনও তথ্য জানায়নি বাংলাদেশকে। কলকাতায় বাংলাদেশ উপ-দূতাবাস দৈনিক সত্যকথা প্রতিদিন কে জানিয়েছে, সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিমের মরদেহ উদ্ধারের বিষয়ে অফিশিয়ালি কোনও তথ্য তাদের জানানো হয়নি। তিনি নিখোঁজ হওয়ার পর তারা (উপ-দূতাবাসের কর্মকর্তা) দুই দেশের পুলিশ ও তদন্তকারীদের মধ্যে যোগাযোগ করিয়ে দেন। তদন্তকারীরা নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রেখে কাজ করছিলেন।

এদিকে বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন সাংবাদিকদের বলেছেন, ভারতে নিখোঁজ বাংলাদেশের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারের মরদেহ উদ্ধারের খবর গণমাধ্যমসূত্রে পেয়েছি। তবে ভারতের পুলিশ আনুষ্ঠানিকভাবে আমাদের এখনও কিছু নিশ্চিত করেনি। তিনি জীবিত নাকি মৃত, তা এখনও অফিসিয়ালি নিশ্চিত নই। আমরা যৌথভাবে কাজ করছি।

তদন্তের স্বার্থে ভারতের পুলিশ বাংলাদেশ পুলিশের কাছে যে ধরনের সহযোগিতা চাইছে, তা তারা সরবরাহ করছেন বলেও জানান আইজিপি।

বুধবার সকালে কলকাতার উপকণ্ঠে বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের ডেপুটি পুলিশ কমিশনার মানব শ্রিংলা সাংবাদিকদের জানান, আনোয়ারুল আজিম শেষ যে ভাড়া গাড়িটি কলকাতায় ব্যবহার করেছিলেন, সেই ক্যাবটির চালক জেরার মুখে স্বীকার করেছে ওই যাত্রীকে খুন করে তার দেহ টুকরো টুকরো করে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল।
তবে লাশ কোথায় ছড়িয়ে দেওয়া হয় সে ব্যাপারে তিনি কিছু বলেননি।

কলকাতায় ৩ জন গ্রেফতার-

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানিয়েছেন, এমপি আনার খুনের ঘটনায় দেশে তিন জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের মধ্যে দুই জন সম্প্রতি কলকাতা থেকে বাংলাদেশে এসেছেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদ জানিয়েছেন, হত্যাকাণ্ডের ‘মূলহোতা’সহ কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ। কলকাতা পুলিশও সন্দেহভাজন দুজনকে গ্রেফতার করেছে।
এমপি আজিমকে হত্যার কারণ সম্পর্কে তার পরিবার, রাজনৈতিক দল, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বা সরকারের পক্ষ থেকে এখনও পর্যন্ত কিছু জানা যায়নি।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) প্রধান ও অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বুধবার দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিবি কার্যালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, বিভিন্ন ধরনের ভুল তথ্য ছড়ানো হচ্ছে। আসলে এটা কী কারণে ঘটেছে জানতে আমাদের তদন্ত চলছে। এটা পারিবারিক নাকি আর্থিক, অথবা এলাকায় কোনও দুর্বৃত্ত দমন করার কারণে এমন ঘটনা ঘটেছে কিনা, সবকিছু আমরা তদন্তের আওতায় আনবো।

তিনি বলেন, এটি নিষ্ঠুর হত্যাকাণ্ড— এটা মনে করেই তদন্তকারী কর্মকর্তারা কাজ করছেন। নিবিড়ভাবে ভারতীয় পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি। কয়েকজন আমাদের কাছে আছে, তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাচ্ছি। তদন্তের স্বার্থে আমরা সবকিছু বলতে পারছি না।

সঞ্জিভা গার্ডেনে এমপি খুন-

স্বর্ণ ব্যবসায়ী গোপাল বিশ্বাস সংবাদমাধ্যমে যে বাড়িতে এমপি আনোয়ারুল আজিম খুন হয়েছেন বলে জানিয়েছেন, সেই বাড়িটি ঘিরে রেখেছে স্থানীয় পুলিশ। বুধবার (২২ মে) দুপুরে দৈনিক সত্যকথা প্রতিদিন কে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, যে বাড়িতে মরদেহ থাকার কথা বলা হচ্ছে, সেটিকে এখন ঘিরে রাখা হয়েছে। তদন্তের স্বার্থে সেখানে কাউকে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না।তিনি দাবি করেন, ধারনা করা হচ্ছে ওই বাড়িতে লাশ থাকতে পারে।