• সোমবার , ২২ জুলাই ২০২৪

অমিত শাহ-খালেদা জিয়া ফোনালাপের বিশুদ্ধ গুজবটি বিএনপির


প্রকাশিত: ১০:৩২ এএম, ১৩ জানুয়ারী ১৫ , মঙ্গলবার

নিউজটি পড়া হয়েছে ১২৯ বার

 

amitsha-khaladaসম্পাদকীয় ডেস্ক.ঢাকা:
অমিত শাহ-খালেদা জিয়া ফোনালাপের বিশুদ্ধ গুজবটি তারাই রটিয়েছে। এর মাধ্যমে তারা এ দেশের সংবাদমাধ্যমকে বিভ্রান্ত করেছে। বিএনপি বাংলাদেশের দুই প্রধান রাজনৈতিক দলের অন্যতম। ১৯৯১ সাল থেকে এই দলটি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় দুবার সরকারে ছিল। সেই বিএনপির এমন বিভ্রান্তি ছড়ানো কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না; গুজব ও বিভ্রান্তি ছড়ানোর মাধ্যমে রাজনৈতিক সুবিধা লাভের এমন প্রবণতা অতিনিন্দনীয়।সম্প্রতি দুটি অসত্য খবর জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করেছে। প্রথমত, যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের ছয় সদস্য খালেদা জিয়াকে অবরুদ্ধ করা ও তারেক রহমানের বক্তব্য প্রচারে নিষেধাজ্ঞার নিন্দায় বিবৃতি দিয়েছেন বলে যে খবর প্রচারিত হয়, তা ভিত্তিহীন। কংগ্রেসের সদস্যরাই বলেছেন, তাঁরা এমন বিবৃতি দেননি। দ্বিতীয়ত, বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হলো যে ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ ও বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মধ্যে টেলিফোনে আলাপ হয়েছে। কিন্তু তারপর অমিত শাহর একান্ত সচিব এস রানা নিশ্চিত করেছেন, এ রকম কোনো টেলিফোন আলাপ হয়নি।

ঘটনাটির দায় মূলত এ দেশের সংবাদমাধ্যমের। তারা লন্ডন থেকে প্রকাশিত ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস টাইমস নামের এক অখ্যাত ব্রিটিশ পত্রিকার অনলাইন সংস্করণের সূত্রে মার্কিন কংগ্রেসের সদস্যদের বিবৃতির খবরটি ছেপেছে। দেশি সংবাদমাধ্যমগুলোর উচিত ছিল মূল সূত্র থেকে খবরের সত্যতা যাচাই করা। কিন্তু তারা তা না করার ফলে এই মিথ্যা তথ্য দেশি সংবাদমাধ্যমে পুনঃপ্রকাশিত হয়েছে। ইন্টারনেটের যুগে অনলাইনভিত্তিক সাংবাদিকতার দুর্বল ও ঝুঁকিপূর্ণ দিকটি এর মধ্য দিয়ে ফুটে উঠেছে।

সংবাদের উৎস ও তার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষকে জিজ্ঞাসা করে তথ্যের সত্যাসত্য যাচাই করার পরেই কেবল সংবাদ প্রকাশ করা সাংবাদিকতার স্বাভাবিক নীতি। অনলাইন সংবাদমাধ্যমের ব্যাপক প্রসারের এই যুগে সঠিক ও নির্ভুল তথ্য প্রচার নিশ্চিত করতে সংবাদমাধ্যমগুলোর আরও সতর্ক হওয়ার বিকল্প নেই।