• সোমবার , ২২ জুলাই ২০২৪

অনলাইন-আইপি টিভি-ইউটিউবে গুজব ঠেকাতে ডিসিদের তথ্যমন্ত্রীর নির্দেশনা


প্রকাশিত: ২:০৮ এএম, ২৭ জানুয়ারী ২৩ , শুক্রবার

নিউজটি পড়া হয়েছে ৯৬ বার

বিশেষ প্রতিনিধি : তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, জেলা পর্যায়ে অনেক অনলাইন পোর্টাল, আইপি টিভি ও ইউটিউব চ্যানেল আছে যেগুলোর নিবন্ধন নেই। সেগুলোর মাধ্যমে অনেক সময় গুজব ছড়ানো হয়, ভুল তথ্য পরিবেশন করা হয় এবং বিভ্রান্তি ছড়ানো হয় বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। মন্ত্রী বলেন,এটি একটি বড় চ্যালেঞ্জ। অনিবন্ধিত পোর্টাল ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ও ভুল তথ্য যাতে ছড়ানো না হয় তা প্রতিরোধে করণীয় বিষয়ে জেলা প্রশাসকদের দিকনির্দেশনা দিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে তিনদিনব্যাপী জেলা প্রশাসক সম্মেলনের সমাপনী দিনে বক্তব্যদান ও মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন মন্ত্রী। তথ্য ও সম্প্রচার সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার এ সময় উপস্থিত ছিলেন।তথ্যমন্ত্রী বলেন, এ পর্যন্ত ১৬২টি অনলাইন সংবাদ পোর্টাল, ১৬৯টি দৈনিক পত্রিকার অনলাইন পোর্টাল, ১৫টি টেলিভিশনের অনলাইন পোর্টাল ও ১৪টি আইপিটিভিকে রেজিস্ট্রেশন দেয়া হয়েছে। সে বিষয়টি জেলা প্রশাসকদের জানানো হয়েছে। বাকি সবই রেজিস্ট্রেশনবিহীন।

তিনি বলেন, জেলা পর্যায়ে অনেক অনলাইন পোর্টাল, আইপি টিভি ও ইউটিউব চ্যানেল আছে যেগুলোর কোনো নিবন্ধন নেই। সেগুলোর মাধ্যমে অনেক সময় গুজব ছড়ানো হয়, ভুল তথ্য পরিবেশন করা হয় এবং বিভ্রান্তি ছড়ানো হয়। এটি একটি বড় চ্যালেঞ্জ।ড. হাছান জানান, অনিবন্ধিত পোর্টালে যদি দেখা যায় কেউ বিভ্রান্তি বা গুজব ছড়াচ্ছে কিংবা অসত্য বা ভুল সংবাদ পরিবেশন করে সমাজে হানাহানি তৈরির অপচেষ্টা চালাচ্ছে তাহলে তাৎক্ষণিকভাবে সত্য তথ্যটা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পরিবেশন করতে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মন্ত্রণালয়ের গুজব প্রতিরোধ সেলকে জানাতে জেলা প্রশাসকদের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, সরকার তো প্রশাসন নিয়েই কাজ করে। সরকারের রাজনৈতিক অংশ এবং প্রশাসনিক অংশ অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত। সরকার প্রশাসনের মাধ্যমেই তার কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবে। আমাদের সরকার প্রশাসনকে কোনোভাবেই দলীয়করণ করেনি এবং করার কোনো পরিকল্পনাও নেই।মন্ত্রী বলেন, আজকে যারা ডিসি হয়েছেন কিংবা বিভাগীয় কমিশনার বা সচিব হয়েছেন, যোগ্যতার ভিত্তিতেই তাদেরকে পদায়ন করা হয়েছে। সুতরাং প্রশাসনকে আমরা কখনও দলীয়করণ করিনি। বরং ইতোপূর্বে বিএনপি বিভিন্ন সময় এবং এরশাদও প্রশাসনকে দলীয়করণ করেছিল।

নির্বাচন প্রসঙ্গে প্রশ্নের জবাবে হাছান মাহমুদ বলেন, নির্বাচনের বিষয়ে আজ এখানে আলোচনা হয়নি। কারণ সরকার নির্বাচন আয়োজন করে না। নির্বাচনের আয়োজক প্রতিষ্ঠান হচ্ছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন সংক্রান্ত কোনো নির্দেশনা দিতে হলে জেলা প্রশাসনকে সেটি নির্বাচন কমিশনই দেবে। সেটি আমাদের আলোচ্য বিষয় নয়।

সিনেমা হল পুনঃনির্মাণ, পুনরায় চালু করা, আধুনিকায়ন ও নতুন সিনেমা হল নির্মাণের জন্য যে ১ হাজার কোটি টাকার বিশেষ ঋণ তহবিল গঠন করা হয়েছে সেটি মাঠ পর্যায়ে সবাইকে অবহিত করার জন্য জেলা প্রশাসকদের পরামর্শ দেয়া হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।তিনি বলেন, জেলা প্রশাসকদের পক্ষ থেকে উপজেলা পর্যায়ে তথ্য অফিস করার প্রস্তাব এসেছে। তবে আমি মনে করি উপজেলা পর্যায়ে সব মন্ত্রণালয়ের অফিস থাকতে হবে তা নয়; ক্রমাগতভাবে সরকারের আকার বড় করা সমীচীন নয়, সেটি তাদেরকে বলেছি।