নতুন বছরে নয়া মন্ত্রী-

 

new minister-www.jatirkhantha.com.bd.000

এস রহমান  :  নতুন বছরে নয়া মন্ত্রী হচ্ছেন তিন জন।  বঙ্গভবন থেকে ডাক পাওয়া এই নয়া মন্ত্রীদের তালিকায় রয়েছেন, তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ মোস্তফা জব্বার, লক্ষ্মীপুরের সাংসদ শাহজাহান কামাল ও রাজবাড়ি-১ আসনের সাংসদ কাজী কেরামত আলী।তবে এর সংখ্যা বাড়তেও পারে! বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ মোস্তফা জব্বারকে পূর্ণ মন্ত্রী এবং আগে থেকে মন্ত্রী সভায় স্থান পাওয়া মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দকে একই মন্ত্রণালয়ের পূর্ণ মন্ত্রী করা হতে পারে।এছাড়াও লক্ষ্মীপুরের সাংসদ শাহজাহান কামাল, রাজবাড়ি-১ আসনের সাংসদ কাজী কেরামত আলীকে প্রতিমন্ত্রী করা হতে পারে।

সূত্র জানায়, নতুন বছরের প্রথমে দিনেই মন্ত্রিসভায় রদবদলের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ জন্য মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দসহ কয়েকজনকে আগামীকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে ডেকে পাঠানো হয়েছে।জানা গেছে, নারায়ণ চন্দ্র চন্দকে মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রণালয়ের পূর্ণ মন্ত্রী করা হচ্ছে। ওই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ছায়েদুল হকের মৃত্যুতে ১৭ ডিসেম্বরের পর থেকে পদটি ফাঁকা রয়েছে।

মঙ্গলবার বিকালে নারায়ণ চন্দ্র চন্দ দৈনিক জাতিরকন্ঠকে বলেন, আমাকে আজ সোমবার দুপুর আড়াইটার দিকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে ফোন করে আগামীকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে।এ বিষয়ে মন্ত্রী পরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে, নারায়ণ চন্দ্র চন্দকে ফোন করার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তবে তিনি পূর্ণ মন্ত্রী হচ্ছেন কিনা এ ব্যাপারে স্পষ্ট করে কিছু বলেননি।তাকে পূর্ণ মন্ত্রী করা হলে প্রতিমন্ত্রীর পদ আবারও শূন্য হবে। এক্ষেত্রে কে আসবেন প্রতিমন্ত্রীর আসনে তা নিয়েও চলছে আলোচনা-। বিভিন্ন সূত্র থেকে লক্ষ্মীপুরের সাংসদ শাহজাহান কামাল, রাজবাড়ি-১ আসনের সাংসদ কাজী কেরামত আলী এবং তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ মোস্তফা জব্বারকে এই সময়ে বঙ্গভবনে উপস্থিত থাকার জন্য বলা হয়েছে বলে জানা গেছে।

তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ মোস্তফা জব্বার এ প্রসঙ্গে জাতিরকন্ঠকে জানান, এটা নেত্রীর পছন্দের ব্যাপার। তিনি ইচ্ছা করলে এটা করতেই পারেন। তবে আমাকে দায়িত্ব দেয়া হলে আমি বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার স্বপ্নকে এগিয়ে নিতে দেশনেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের চেষ্টা স্বার্থকভাবে রুপান্তরে কাজ করবো। ধারণা করা হচ্ছে, দীর্ঘদিন থেকে চলে আসা মন্ত্রিসভায় রদবদলের অংশ হিসেবেই তাদেরকে বঙ্গভবনে ডাকা হয়েছে।শাহজাহান কামাল এবং কাজী কেরামত আলীকে প্রতিমন্ত্রী করা হতে পারে। মোস্তফা জব্বারকে টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী করা হতে পারে।২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রীর দায়িত্ব পান ছায়েদুল হক। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি এ দায়িত্বে ছিলেন।

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com