এবার মুসলমানদের ‘রোহিঙ্গা’ বানানোর চেষ্ঠা

Asam-www.jatirkhantha.com.bd
আসাম থেকে প্রকাশ দেব  :  এবার আসামে মুসলিমদের ‘রোহিঙ্গা’ বানানোর চেষ্ঠা তদবির শুরু করেছে বিজেপি। এলক্ষ্যে রাজ্যে বসবাসকারী নাগরিকদের নামের তালিকা প্রকাশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে আসামের রাজ্য সরকার। যাদের নাম এই তালিকায় থাকবে না তাদেরকে অবৈধ অভিবাসী হিসেবে চিহ্নিত করে রাজ্য থেকে বের করে দেয়া হবে। মূলত বাংলাদেশি মুসলিম অভিবাসীদের রাজ্যছাড়ার জন্যই এই পদক্ষেপ নিয়েছে আসাম বিজেপি সরকার।

আগামী রোববার ওই তালিকা প্রকাশ করার কথা রয়েছে। এ খবরে সেখানে বসবাসকারী অভিবাসীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে। সহিংসতার আশঙ্কায় পুলিশ ও আধা-সামরিক বাহিনীর প্রায় ৬০ হাজার সদস্য মোতায়েন করেছে কর্তৃপক্ষ। আসামে নরেন্দ্র মোদির ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) গত বছর প্রথমবারের মতো সরকার গঠন করে।
নির্বাচনী প্রচারণার সময় দলটি আসামে বসবাসকারী অবৈধ মুসলিম অভিবাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার অঙ্গীকার করে। স্থানীয় হিন্দুদের অভিযোগ, অবৈধ এসব মুসলিমরা তাদের চাকরির সুযোগ ছিনিয়ে নিচ্ছে। মূলত হিন্দুদের এই অভিযোগের প্রেক্ষিতেই অবৈধ অভিবাসীদের বের করে দেয়ার পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে আসাম রাজ্য সরকার। তবে এই পদক্ষেপের প্রতিবাদ জানিয়েছেন আসামের মুসলিম নেতারা।
Asam-www.jatirkhantha.com.bd.1
তারা অভিযোগ করেছেন, মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর মতো আসামের মুসলিমদের দেশছাড়া করার জন্য সরকার এই তালিকা তৈরি করেছে। রাজ্যের একজন উচ্চপদস্থ পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, সম্ভাব্য সহিংসতা দমনে রাজ্য জুড়ে নিরাপত্তা বাহিনীর হাজার হাজার সদস্যকে মোতায়েন করা হয়েছে।জানা গেছে, ১৯৫১ সালের পর আসামে প্রথমবারের মতো পরিচালিত এক জনগণনার ভিত্তিতে এই ন্যাশনাল রেজিস্টার অব সিটিজেন্স (এনআরসি) তৈরি করা হয়েছে। উল্লেখ্য, ভারতের রাজ্যগুলোর মধ্যে আসামে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মুসলিম ধর্মাবলম্বীর বসবাস।

রোববার যে তালিকা প্রকাশ করা হবে, তা থেকে মুসলিমদের উল্লেখযোগ্য অংশকে বাদ দেয়া হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এ কারণে সেখানে ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। আসামের অর্থমন্ত্রী হিমান্ত বিশ্ব শর্মা রয়টার্সকে বলেছেন, এই তালিকা তৈরির উদ্দেশ্য ‘অবৈধ বাংলাদেশিদের’ চিহ্নিত করা। হিমান্ত বিশ্ব শর্মা নিজেই এই তালিকা তৈরির দায়িত্বে আছেন। তিনি বলেন, ‘যাদের নাম এই তালিকায় থাকবে না, তাদের বহিষ্কার করা হবে। আমরা এক্ষেত্রে কোনো ফাঁক রাখতে চাই না এবং এজন্য সব ধরনের নিরাপত্তার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।’

তবে বাংলাদেশি হিন্দুদের আশ্রয় দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন হিমান্ত বিশ্ব শর্মা। তিনি বলেন, হিন্দুরা বাংলাদেশে নিপীড়নের শিকার হন। আসাম রাজ্য সরকারের এই পদক্ষেপের বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি কেন্দ্র সরকার। এদিকে, বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানকে উদ্ধৃত করে রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, এভাবে অবৈধ বাংলাদেশিদের বহিষ্কার করার ব্যাপারে ভারত সরকারের কাছ থেকে কোনো তথ্য তারা পাননি।

আসামের বিজেপি নেতাদের দাবি, ভারতের আসাম রাজ্যে প্রায় বিশ লাখ মুসলিম রয়েছেন যাদের পূর্বপুরুষরা বাংলাদেশের। ১৯৭১ সালের ২৪শে মার্চের আগে থেকেই যে তারা আসামে থাকতেন, সেরকম দলিল-প্রমাণ হাজির করলেই কেবল তাদের ভারতের নাগরিক হিসেবে গণ্য করা হবে। আসামের মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ একটি এলাকার বাসিন্দা আসিফুল ইসলাম বলেন, আমার বাবা-দাদারা সবাই ভারতে জন্ম নিয়েছেন। কিন্তু আমরা যে ভারতের নাগরিক, সেটি প্রমাণের দলিলপত্র আমরা জোগাড় করতে পারছি না। কারণ আমার পূর্বপুরুষরা ছিলেন নিরক্ষর। তারা কোন দলিলপত্র রাখেননি।

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com